সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:০১ পূর্বাহ্ন

যেভাবে ইকবালকে ধরলেন ‘তিন গোয়েন্দা’

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট : শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৯:০১ pm

পরীক্ষা শেষে কক্সবাজারে ঘুরতে গিয়েছিলেন ৩ বন্ধু। বিচে ঘুরতে ঘুরতেই এক পর্যায়ে তারা ইকবালকে দেখেন। ১ম দিন সাধারণ ট্যুরিস্ট মনে করে পাত্তা না দিলেও পরের দিন সন্দেহ হওয়ায় পুলিশে ফোন দেন তারা। পরে পুলিশের তৎপরতায় যিনি ধরা পড়লেন তিনি কুমিল্লার নানুয়ার দিঘী মন্দিরে পবিত্র কোরআন রেখে আসা ইকবাল! যাকে পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছিলো গত সাতদিন ধরে।

নোয়াখালীর চৌমুহনী এস এ কলেজের ৩ ছাত্র সম্প্রতি অনার্স পরীক্ষা শেষে ঘুরতে গিয়েছিলেন কক্সবাজারে। কলাতলীর সুগন্ধা পয়েন্টে ঘুরতে এসে তারা খেয়াল করলেন একজন উদ্ভ্রান্তের ঘুরছেন। প্রথম দিন সাধারণ ট্যুরিস্ট বা ভবঘুরে ভেবে পাত্তা দেননি তারা। কিন্তু পরেরদিনও একই জায়গায় ওই ব্যক্তিকে এবং সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবি দেখে সন্দেহ হওয়ায় তারা ফোন দেন স্থানীয় পুলিশকে।

ওই ৩ ছাত্রের ফোন পেয়ে নোয়াখালীর এএসপি পুরো বিষয়টি কুমিল্লার পুলিশ সুপারকে জানিয়ে বলেন, কয়েকজন ছেলে আমাকে জানালো যে তারা ইকবালকে দেখেছে, তবে ছেলেগুলো নিশ্চিত না যে এটাই ইকবাল কিনা। তবে ছেলেরা বলেছে যে, গণমাধ্যমে আসা ছবির সাথে এই ব্যক্তির চেহারার মিল আছে। কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, নোয়াখালী জেলার পুলিশ সুপার তাকে. জানান সমুদ্র সৈকত থেকে তাকে ফোন করে বলা হয়েছে ইকবালের মতো একজনকে দেখা যাচ্ছে। ইমিডিয়েট স্টেপ হিসেবে যারা ফোন করেছিলো তাদেরকে আমরা পুলিশ না পৌঁছানো পর্যন্ত ওই ব্যক্তিকে নজরদারিতে রাখতে বলি। পরে কক্সবাজার জেলার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ইকবালকে আটক করে।

পুলিশ বলছে, পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনার একদিন পরই এর সাথে কে জড়িত তা জানতে পেরেছিল পুলিশ। এরপর শুরু হয় খোঁজ। কিন্তু কিছুতেই পাওয়া যাচ্ছিল না ইকবালকে। এমনকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও বলেন যে, আমাদের সন্দেহভাজন ব্যক্তি মোবাইল ফোন ব্যবহার করে না, এজন্যই তাকে ধরতে সময় লাগছে।

ইকবালকে ধরার অভিযানে যেসব পুলিশ সদস্য ছিলেন তারা জানান, কক্সবাজার থেকে গ্রেফতারের আগ পর্যন্ত ছোট ছোট দলে পুলিশ ৩৫ থেকে ৪০ টি অভিযান চালিয়েছে, কিন্তু ইকবালকে ধরা যায়নি।

এ ঘটনার তদন্তে কুমিল্লা জেলা পুলিশ থেকে শুরু করে অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ), কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) যুক্ত ছিল। এ দলের অন্যতম সদস্য এটিইউ এর পুলিশ সুপার মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, ১৩ অক্টোবর ঘটনা ঘটার পর এটিইউ এর ১৫ জনের একটি দল কুমিল্লায় যায়। ১৪ অক্টোবর মধ্যরাতে তারা ইকবালকে শনাক্ত করেন। তবে জানা গেছে যে, ঘটনার পরও ইকবাল বেশ কয়েকদিন কুমিল্লায়ই ছিলেন। ইকবাল কক্সবাজারে কবে কীভাবে গেলেন তা পুলিশ এখনও নিশ্চিত নয়।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কুমিল্লা পুলিশ ইকবালকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

Add

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com