1. babardhaka@gmail.com : admi2018 :
  2. news@ajkaal24.com : AjKaal24 .Com : AjKaal24 .Com
সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন

ভাসানচরকে রক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে নৌবাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০

ভাসান চর। নোয়াখালীর চরইশ্বর ইউনিয়নের হাতিয়া ও সন্দীপের মধ্যবর্তী স্থানে তার অবস্থান। পতেঙ্গা থেকে রওনা দিয়ে পৌনে তিন ঘণ্টায় ভাসান চরে পৌঁছে ঢাকা থেকে যাওয়া সাংবাদিকরা।

চরে নামার আগেই দেখা যায় চার স্তরের বাঁধ নির্মাণ করে চরটিকে ভাঙন, জোয়ার, জলোচ্ছ্বাস ও ঘূর্ণিঝড়ের হাত থেকে রক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। চরটির আয়তন প্রায় ১৩ হাজার একর। এর প্রায় অর্ধেক ৬ হাজার ৪২৭ একর এখনই ব্যবহারযোগ্য।

ব্যবহারযোগ্য জমির তিন ভাগের একভাগ ১৭শ ২ একর জমিতে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে তৃতীয় আশ্রয়ণ প্রকল্প। এরমধ্যে ১ লাখ রোহিঙ্গার থাকার জন্য আবাসন ও অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে ৪৩২ একর জমিতে। ভবিষ্যতে সম্প্রসারণ ও বনায়নের জন্য রাখা হয়েছে ৯১৮ একর এলাকা। ৩৫২ একর জমি রাখা হয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ফরওয়ার্ড বেইসের জন্য।

পাঁচটি জায়গা থেকে এই চরে যাওয়া যায়। এর সবচেয়ে কাছের ভূখণ্ড সন্দীপ, যার দূরত্ব ৪.৫ নটিক্যাল মাইল। জাহাজির চর থেকে ভাসান চরের দূরত্ব ১১ নটিক্যাল মাইল। হাতিয়া থেকে ১৩.২, নোয়াখালী থেকে ২১ এবং পতেঙ্গা থেকে ২৮ নটিক্যাল মাইল।

আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগীদের অনেকেই দ্বিপটিকে মূলভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন বললেও, ভাসান চর আশ্রয়ণ প্রকল্পের পরিচালক তা মানতে নারাজ।

ভাসানচর তৃতীয় আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিচালক কমোডোর আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ভাসানচর থেকে দুই থেকে আড়ি ঘণ্টার মধ্যে আমরা কর্ণফুলী নদী পৌঁছাতে পারি। সন্দীপে পৌঁছাতে পারি দেড় থেকে পৌনে দুই ঘণ্টা মধ্যে এবং হাতিয়া পৌঁছাতে পারি তিন ঘণ্টায়। এই ডিফারেন্সটা আমাদেরকে মেনে নিতেই হবে। আমাদের উপকূলীয় অঞ্চলে লক্ষ লক্ষ লোক অবস্থান করছে। সুতরাং আমার কাছে কখনো মনে হয় নাই যে, এটা একটা বিচ্ছিন্ন দ্বীপ এবং এখানে যোগাযোগের ব্যবস্থা নাই।’

প্রায় ২০ বছর আগে জেগে ওঠা ভাসান চরে এখনো রয়েছে মহিষের বাথান। বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ৬ হাজার মহিষ পালন করছেন। এছাড়া প্রকল্প সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশিদের জন্য পাইলট আকারে ছাগল, ভেড়া ও গৃহপালিত পশুর খামার গড়ে তুলেছে নৌবাহিনী। আছে ফলজ ও বনজ গাছের নার্সারি। অব্যবহৃত ৯১৮ একর জমিতে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প স্থাপন করারও পরিকল্পনা রয়েছে। মাত্র ২ বছরে এক সময়ের বিরান ভূমি ভাসান চরের এই রূপান্তর সত্যিই বিস্ময়কর।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com