মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ০৬:২১ অপরাহ্ন

কাজ না করেই নিয়মিত বেতন কোষাধ্যক্ষ আবুলের

কাজ না করেই নিয়মিত বেতন কোষাধ্যক্ষ আবুলের

সিলেট সংবাদদাতা: প্রায় সাড়ে চার বছর ধরে কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকার পরও সিলেট যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের কোষাধ্যক্ষ আবুল হাশেম নিয়মিত হাজিরা খাতায় সাক্ষর করেছেন, নিয়েছেন বেতনভাতাসহ সব সুবিধাও। অভিযোগ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের যোগসাজশে এই অনিয়ম করেছেন তিনি। বৈশাখী টেলিভিশনের অনুসন্ধানে এমনই তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

২০১০ সালের মার্চ মাসে সিলেট যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে ডেপুটেশনে বদলি হয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যোগদান করেন আবুল হাশেম। এরপর, ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে আবুল হাশেমের ডেপুটেশন বাতিল করে কর্তৃপক্ষ। নিয়ম অনুযায়ী এরপর সিলেট যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে কোষাধ্যক্ষ হিসেবে তার যোগদান করার কথা। কিন্তু তিনি আর কর্মস্থলে যোগ দেননি।

তবে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর রয়েছে আবুল হাশেমের। নিয়েছেন বেতন ভাতাসহ সব সুবিধা। এমনকি ২০১৫ সালে সরকারী চাকরিজীবীদের জন্য নতুন পে-স্কেল ঘোষণা করলে সে সময় তাকে আবারো কর্মস্থলে হাজির দেখানো হয়।

অভিযোগ রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানের সাবেক প্রধান ভারপ্রাপ্ত কো-অর্ডিনেটর এস এ এম কবিরসহ কয়েকজন কর্মচারীর যোগসাজশে এই কাজ করতে সক্ষম হন আবুল হাশেম। এভাবে দীর্ঘ সাড়ে চার বছর উপস্থিতি দেখিয়ে ২০১৮ সালের মে মাসে স্বেচ্ছায় অবসরে যান তিনি।

এই প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষক রেজাউল করিম ভূইয়াও নিশ্চিত করেছেন আবুল হাশেমের প্রতারণার বিষয়টি।

প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে এই অনিয়মের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত কোষাধ্যক্ষ মমতাজ উদ্দিন। তবে সাবেক ভারপ্রাপ্ত কো-অর্ডিনেটর এস এ এম কবির তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন সিলেট যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বর্তমান কর্মকর্তারা।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Add

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com