শনিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:০১ অপরাহ্ন

বুয়েট হল: মতের বিপক্ষে গেলেই শিক্ষার্থী নির্যাতন

বুয়েট হল: মতের বিপক্ষে গেলেই শিক্ষার্থী নির্যাতন

মতের বিরোধ কিংবা ক্যাম্পাসে বড় ভাইদের বেধে দেয়া নিয়ম ভাঙ্গলেই, শিক্ষার্থীদের ওপর চলে, অমানবিক নির্যাতন। বুয়েটের হলগুলোতেও এর ব্যতিক্রম হতো না। এই নির্যাতনের মূল অভিযোগ ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের কোন কোন নেতার বিরুদ্ধে। তবে যারা তাদের অনুগত থাকে তারা নির্যাতন থেকে রেহায় পায় এবং নানা সুবিধা ভোগ করে। আবরার হত্যার পর বুয়েটে এরকম বহু নির্যাতনের ঘটনা সামনে আসছে। এমন একশ’ অভিযোগ জমা জমা পড়লেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি বুয়েট প্রশাসন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা জানায়, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী এবং জুনিয়রদের ওপর বড় ভাইদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের ঘটনা পুরনো। কখনো কখনো খবর হলেও এসব নির্যাতনের বেশিরভাগ ঘটনা আড়ালেই থেকে যায়। প্রযুক্তি শিক্ষার সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান বুয়েটেও জুনিয়রদের ওপর বড় ভাইদের নিপীড়ন চলে আসছিল বহুদিন ধরেই।

তাদের অভিযোগ- বুয়েটের শেরে বাংলা হলে নির্যাতনের কেন্দ্র গড়ে তুলেছিল ছাত্রলীগের কতিপয় পদধারী। হলটির ২০০৫ নম্বর কক্ষ ছিল বুয়েট ছাত্রলীগের গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক ইসতিয়াক আহমেদ মুন্নার। চারজন থাকার কথা থাকলেও, তিনি একাই থাকতেন। সেখানে মাদক সেবনের আলামতও পেয়েছে পুলিশ।

হলটির শিক্ষার্থীরা জানান, ফেসবুকে হলের কে কি লিখছে তা মনিটর করার জন্য একটি সেল গঠন করেছিল তারা। নিজেদের বিরুদ্ধে গেলেই, তাদের ডেকে নিয়ে চলত বিচারিক কাজ। সপ্তাহের প্রতি বুধবার হলে চাঁদ রাত নামে পরিচিত। সেদিন জুনিয়রদের ডেকে নিয়ে নিজস্ব বিচারের নামে চলতৈা শারীরিক মানসিক নির্যাতন। রুমে নিলে কম সাজা আর ছাদে নিলে বেশি।

মূলত এই নির্যাতন চালানো হয় নতুন শিক্ষার্থীদের নিজেদের দলে ঢোকানোর জন্য। যারা তাদের দলে যোগ দেয় তাদের জন্য থাকে বাড়তি সুযোগ-সুবিধা।

হলের কর্মচারীরা জানান, শেরেবাংলা হলের ২০০৫ নম্বর কক্ষে প্রায়ই, শিক্ষার্থীদের ধরে এনে, মারধর করত বুয়েট ছাত্রলীগের গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক, ইসতিয়াক আহমেদ মুন্নাসহ অন্য নেতারা।

বুয়েট ছাত্র কল্যাণ পরিষদ পরিচালক মিজানুর রহমান জানান, নির্যাতনের ১০৩টি অভিযোগ জমা পড়েছে বুয়েট প্রশাসনের কাছে। দায়িত্ব নেয়ার পর বেশ কিছু র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ তিনি পেয়েছেন। তিনি বলেন, আবরার নিহত হওয়ার পরও তারা পার পেয়ে যাবে ভেবেই হয়তো হল ছেড়ে পালায়নি।

ছাত্র রাজনীতিতে ক্ষমতার দাপট দেখাতেই র‌্যাগিংয়ের নামে এমন নির্যাতন-নিপীড়ন চলে বলে জানান সাধারণ শিক্ষার্থীরা।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com