বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন

ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ মিলিটারি ডিকটেটরদের কথা

ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ মিলিটারি ডিকটেটরদের কথা

দেশে ছাত্র রাজনীতি একেবারে নিষিদ্ধ মিলিটারি ডিকটেটরদের কথা বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুয়েটের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চাইলে তা বন্ধ করতে পারে। তবে একটা ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের বিপক্ষে মত দেন তিনি। জানান, আবরার হত্যায় দল দেখা হবে না; বিচার হবে। দেশের সব হলে তল্লাশীর জন্য নির্দেশ দেয়া হবে প্রশাসনকে।

সম্প্রতি নিউইয়ার্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ অধিবেশন যোগদান ও ভারত সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই দুই দেশে সরকারি সফরের ব্যাপারে দেশবাসীকে অবহিত করতে বুধবার বিকালে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে আসেন তিনি।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী তার সফরের বিস্তারিত তুলে ধরেন সংবাদ মাধ্যমের কাছে। ভারতের সাথে সই হওয়া সমঝোতা স্মারক নিয়ে সমালোচনারও জবাব দেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ঘুরে ফিরেই উঠে আসে সাম্প্রতিক আবরার হত্যার ঘটনাটিও। সরকার প্রধান এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান। বলেন, এ ঘটনায় দোষীদের বিচার হবেই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বুয়েটের কমিটি আছে, তারা যদি মনে করে ছাত্ররাজনীতি করে দিতে পারে। এখানে আমরা কোনো হস্তক্ষেপ করব না। এই যে ছেলেটাকে (বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদ) হত্যা করল, এটা তো কোনো রাজনীতি না। বসুনিয়াকে (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র রাউফুন বসুনিয়া) যে হত্যা করেছিল সেটা রাজনৈতিকভাবে।

ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করা হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ছাত্ররাজনীতি ব্যান্ড করে দিতে হবে, এটা তো মিলিটারি ডিক্টেটরদের কথা। এখানে রাজনীতিটা কোথায়? এর কারণটা কোথায়? এটা খুঁজে খুঁজে বের করতে হবে।’

আবরারের হত্যাকাণ্ডের বিচারে নিজের অবস্থানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিসের ছাত্রলীগ, সে বিবেচনা করব না। এই হত্যাকাণ্ডের বিচার হবেই। অপরাধী অপরাধীই।’

শেখ হাসিনা বলেছেন, অপরাধীর রাজনৈতিক পরিচয় যা–ই হোক, নিশ্চিত করা হবে সর্বোচ্চ শাস্তি।

আবরার হত্যাকে ‘অমানবিক’ বলে অভিহিত করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘একটা বাচ্চা ছেলে, ২১ বছর বয়স। তাকে কী অমানবিকভাবে হত্যা করেছে। পিটিয়ে পিটিয়ে মেরেছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ ঘটনার পরই ছাত্রলীগকে বলেছি অভিযুক্তদের বহিষ্কার করতে। তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। পুলিশকে বলেছি অপরাধীদের ধরতে। অনেকেই ধরা পড়েছে। ছাত্ররা নামার আগেই আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।’

আবরার প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সাধারণ পরিবারের ছেলে, এত ব্রিলিয়ান্ট একটা ছেলে। তার মায়ের কষ্ট আমি বুঝি। বাবার কষ্ট বুঝি। কারণ, আমিও হত্যার বিচার চেয়ে পাইনি। মা–বাবার হত্যার পর ৩৮ বছর আমাকে অপেক্ষা করতে হয়েছে।’

শুদ্ধি অভিযান নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। জানান, অনিয়ম দুর্নীতি হলেই অভিযান চলবে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত দেশ গড়ার অঙ্গীকার করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে নরেন্দ্রো মোদির ভারত সরকার মিয়ানমারের সাথে যোগাযোগ করবে এবং আলোচনা চালিয়ে যাবে।

তিস্তা চুক্তি নিয়ে ভারতের সাথে আলোচনা অব্যাহত আছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, এনআরসি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নাই।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com