বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন

বিশেষ বিজ্ঞপ্তি :

নিউজ পোর্টাল ও আইপি টেলিভিশন  আজকাল২৪.কম-এ ঢাকা সিটির প্রতি থানা ও সারেদেশে "রিপোর্টার/সংবাদদাতা" নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন aajkaalbd@gmail.com

কে হচ্ছেন ঢাকার নতুন পুলিশ কমিশনার

কে হচ্ছেন ঢাকার নতুন পুলিশ কমিশনার

কে হচ্ছেন ঢাকার নতুন পুলিশ কমিশনার? বর্তমান কমিশনারের মেয়াদের শেষে এমন আলোচনা এখন পুলিশ মহলে। সবমিলিয়ে ছয়জনের নাম রয়েছে আলোচনায়। সেই সাথে হিসেব কষার পালা, রেকর্ড সময় দলে দায়িত্ব পালন করে কতটুকু সফল ছিলেন আছাদুজ্জামান মিয়া। জঙ্গী দমন, রাজনৈতিক সহিসংতা নিয়ন্ত্রনে সফলতা পেলেও যানজট নিরসন, জনবান্ধব পুলিশিং করতে না পারায় দায়ও আছে বর্তমান কমিশনারের।

বর্তমান র‍্যাব প্রধান ও সে সময়ের ঢাকা মেট্রোপলিটনের পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার বেনজীর আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন আছাদুজ্জামান মিয়া। মাঝে কেটে গেছে চার বছর সাত মাস। যা এই পদে ঢাকায় রেকর্ড।

২০১৪ নির্বাচনের আগে-পরে বিরোধীদের আন্দোলনের কারণে অস্থিতিশীল ছিল রাজপথ, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিরাপদ সড়ক, কোটা ও ভ্যাটবিরোধীসহ নানা আন্দোলন সামলাতে হয়েছে ডিএমপিকে। ২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিজান হামলার ঘটনাও ছিল বর্তমান কমিশনারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

এছাড়া, সিটিজেন ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেস (সিআইএমএস) ডাটাবেজে এরইমধ্যে যুক্ত করা হয়েছে ঢাকার ৭২ লাখ নাগরিকে তথ্য। তাই বিদায় লগ্নে প্রশ্ন ছিল নিজের কর্মমেয়াদকে কিভাবে মুল্যায়ন করবেন আছাদুজ্জামান মিয়া?

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, সিআইএমএস ডাটাবেজের কারণে সন্ত্রাসী, জঙ্গিরা পরিচয় গোপব রেখে বাসা ভাড়া করতে পারছে না বা লুকিয়ে থাকতে পারছে না।

ঘন্টার পর ঘন্টার রাস্তায় বসে থাকা রাজধানীবাসীর জন্য যানজট নিরসনে তেমন সফলতা ছিলো না ডিএমপির। পাশাপাশি জনগনের মন থেকে দূর হয়নি পুলিশ ভীতিও।

তিনি বলেন, থানার সেবার মান কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে নিয়ে পারিনি। যানজটের ক্ষেত্রে আমাদের অনেক ব্যর্থতা রয়েছে। তবে তার জন্য আমাদের থেকে বেশি দায়ী আমাদের সমাজ। কারণ কেউ আমরা আইন মানতে চাইনা।

তবে, নতুন যিনিই দায়িত্ব পাবেন, তাকে মেগাসিটির চাপ সামলে সতর্ক পদক্ষেপ নিতে হবে বলে পরামর্শ বিদায়ী কমিশনারের।

আছাদুজ্জামান মিয়া আরও বলেন, পুলিশ নিজেকে রাজা মনে করবেনা, জনগণের সেবক মনে করবে। আমরা অনেকটাই এগিয়েছি সে পথে। সেখান থেকে নতুন নেতৃত্ব সামনে এগিয়ে নিতে হবে।

কে হচ্ছেন পরবর্তী ডিএমপি কমিশনার, এমন আলোচনায় একেবারেই সামনে আছেন সদ্য সাবেক ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি ও বর্তমান অতিরিক্ত আইজিপি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং বর্তমান সিআআইডি প্রধান শফিকুল ইসলাম।

আছেন ডিএমপির সাবেক অতিরিক্ত কমিশনার ও পুলিশ কলেজের রেক্টর শেখ মারুফ, অতিরিক্ত আইজিপি শাহাব উদ্দিন কোরেশী। আর যদি কাউন্টার টেররিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম কিংবা ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি হাবিবুর রহমানের মতো কেউ দায়িত্ব পান সেটি হবে নতুন চমক।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ১০টি থানা নিয়ে যাত্রা শুরু হলেও এখন থানা রয়েছে ৫০টি। শুরুতে ৬ হাজার ফোর্স থাকলেও বর্তমানে ডিএমপিতে ৫০ হাজার ফোর্স কর্মরত রয়েছে।

১৯৭৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি যাত্রা শুরু হওয়া ডিএমপির প্রথম কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ই এ চৌধুরী। এরপর যথাক্রমে ডিএমপির কমিশনার ছিলেন- এ এম এম আমিনুর রহমান, আব্দুর রকীব খন্দকার, মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান,

এম আজিজুল হক, এ এইচ এম বি জামান, এ এম এম নসরুল্লাহ খান, মোহাম্মদ সালাম, এম এনামুল হক, গোলাম মোরশেদ, এ এস এম শাহজাহান, আশরাফুল হুদা, মির্জা রকিবুল হুদা, এ এন হুসেইন, একে আল মামুন, এ এফ এম মাহমুদ আল-ফরিদ, এ কে এম শামসুদ্দিন, মতিউর রহমান, কুতুবুর রহমান, আনোয়ারুল ইকবাল, আব্দুল কাইয়ুম, এস এম মিজানুর রহমান, নাইম আহমেদ, এ বি এম বজলুর রহমান ও এ কে এম শহীদুল হক।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com