বুধবার, ১৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন

চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্যযুদ্ধের সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ

চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্যযুদ্ধের সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ

চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে রপ্তানিতে সুফল পেতে শুরু করেছে বাংলাদেশ। দীর্ঘ ১৫ মাস পর যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েছে বাংলাদেশি পোশাক রপ্তানি।

তবে এ প্রবণতা স্বল্পমেয়াদি বলে মনে করে বিজিএমইএ। বাণিজ্যযুদ্ধ দীর্ঘদিন চললে, আবার মন্দায় পড়তে পারে বিশ্ব অর্থনীতি। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা করছেন অর্থনীতিবিদরা।

চলতি বছরের প্রথম ৫ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে ২৫৫ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। গত বছরের এই সময়ে যা ছিলো ২২১ কোটি ডলার। বেড়েছে সাড়ে ১৫ শতাংশ। প্রবৃদ্ধির হিসেবে বাংলাদেশই শীর্ষে। ভিয়েতনামের প্রবৃদ্ধি ১২ শতাংশ। ভারতের প্রায় ১১ শতাংশ। চীনের মাত্র দশমিক ৩৭ শতাংশ।

চীনের সঙ্গে বাণিজ্যযুদ্ধের কারণেই যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশি পোশাকের সুদিন যাচ্ছে বলে মনে করে বিজিএমইএ। তবে তা দীর্ঘস্থায়ী না হওয়ার শঙ্কাও আছে।
বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক বলেন, নূন্যতম মজুড়ি যে বছর বাড়ে সে বছর দাম বাড়ান ক্রেতারা। এর পর নানা অযুহাতে দাম কমাতে থাকে। সবশেষে সেই দাম আর ধরে রাখা যায় না।

চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধ দীর্ঘমেয়াদী হলে, তার প্রভাব পড়বে বিশ্ব অর্থনীতিতেও। কমবে বৈশ্বিক চাহিদা। সেক্ষেত্রে তার আঁচ লাগবে বাংলাদেশের গায়েও।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. মির্জ্জ্বা আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘আমেরিকার সঙ্গে শুধু চীন না, ইউরোপের বেশ কিছুদেশেরও ঝামেলা চলছে। ফলে উন্নত দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি স্লথ হলে চাহিদা কিছুটা কমতে পারে।’ আর তাই সামনের দিনগুলোতে রপ্তানিখাতে সরকারি সহযোগিতা অব্যাহত রাখার পক্ষে বাংলাদেশ রপ্তানিকারক সমিতি।

বাংলাদেশ রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘এই মুহুর্তে আমাদের পণ্যের দাম কমে গেছে। এটা ধারাবাহিক ভাবেই কমছে। আরেক দিকে আমাদেশ খরচ বাড়ছে। এজন্য আরও দুই বছর রপ্তানি খাতকে প্রণোদনা ও সুযোগ সুবিধা দিলে রপ্তানির সঙ্গে কর্মক্ষেত্রও বাড়বে।’

বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে তৈরি হওয়ার পরিস্থিতির দীর্ঘমেয়াদী সুফল পেতে, চীনের বিদেশি বিনিয়োগকে বাংলাদেশে নিয়ে আসা সবচেয়ে ভালো কৌশল হতে পারে বলেও মনে করেন ব্যবসায়ীরা।


© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com