বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন

ইংল্যান্ডের হারে বিশ্বকাপে জটিল সমীকরণ

ইংল্যান্ডের হারে বিশ্বকাপে জটিল সমীকরণ

‘সেমিফাইনাল খেলতে পারে শ্রীলঙ্কা’—অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি স্টিভ ওয়াহর কয়েক দিন আগে বলা কথাটা নিয়ে মুখ টিপে হেসেছিলেন অনেকে। সময়ই বলবে লঙ্কানরা এতটা পথ পাড়ি দিতে পারবে কি না। তবে গতকাল ফেভারিট ইংল্যান্ডকে ২০ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপ জমিয়ে দিল ঠিকই।

লিডসে ৯ উইকেটে শুধু ২৩২ রান করেছিল দিমুথ করুণারত্নের দল। ৩৫০ বা ৪০০ অনায়াসে করতে পারে যে ইংল্যান্ড, তাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হওয়ার কথা ছিল না এটা। সেই তারাই ধীরগতির উইকেটে নেমে খেই হারিয়ে ২১২ রানে অলআউট!

২০ রানের জয়ে বাংলাদেশকে পেছনে ফেলে এখন পাঁচ নম্বরে শ্রীলঙ্কা। ৬ ম্যাচ শেষে তাদের পয়েন্ট ৬। সমান ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে তিনে ইংল্যান্ড। সেমিফাইনালের দৌড়ে তাতে টিকে থাকল লঙ্কানরা। আর হট ফেভারিট ইংল্যান্ডেরও কঠিন হলো শেষ চারের পথ।

৬ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। কোনো ম্যাচ না হারা নিউজিল্যান্ডের ৫ ম্যাচে অর্জন ৯ পয়েন্ট। তারা দ্বিতীয় স্থানে।

এখনও পর্যন্ত মাত্র ৪ ম্যাচ খেলেছে ভারত। কোনো পরাজয় নেই। একটি বৃষ্টিতে ভেসে গেছে। ৭ পয়েন্ট নিয়ে তারা রয়েছে চার নম্বরে। এরপরই রয়েছে শ্রীলঙ্কা এবং বাংলাদেশ যথাক্রমে ৬ এবং ৫ পয়েন্ট নিয়ে।

ইংল্যান্ডের সামনের তিন ম্যাচে প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া, ভারত এবং নিউজিল্যান্ড। তিন ম্যাচেই হারের দারুণ সম্ভাবনা রয়েছে ইংলিশদের। যদি তেমনটাই হয়, তাহলে তো টুর্নামেন্ট থেকে ইংল্যান্ডেরই বাদ পড়ার সম্ভাবনা বেশি। আরও একবার সেমিতে ওঠা হবে তাদের জন্য সুদূরপরাহত।

কাল যদি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ইংল্যান্ড জিততে পারতো, তাহলে তাদের পয়েন্ট হতো ১০, শ্রীলঙ্কার থেকে যেতো ৪। তাতে, পয়েন্ট টেবিলে শেষ পর্যন্ত এতটা ওলট-পালট হওয়ার শঙ্কা তৈরি হতো না।

শ্রীলঙ্কার সামনের তিন প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ভারত। এই তিন ম্যাচের যে কোনো একটিতেও যদি লঙ্কানরা জিতে যায়, তাহলে তাদের পয়েন্ট হয়ে যাবে ৮, দুটিতে জিতলে হবে ১০। ভারতের বিপক্ষে তাদের জয় ধরা যাবে না। আর যদি কোনোটাতেই না জিততে পারে, তাহলে থেকে যাবে ৬ পয়েন্টে।

৯ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা নিউজিল্যান্ডের আগামী তিন ম্যাচ পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। কোনো একটিতেও তারা যদি জিতে যায়, তাহলে সেমিফাইনাল নিশ্চিত ধরে নেয়া যায় তাদের।

যদি তিনটিতেই হেরে যায়, তাহলে কিউইদের জন্যও শেষ পর্যন্ত শঙ্কা রয়েছে সেমিতে ওঠার। অস্ট্রেলিয়া এবং ভারতের সেমিতে ওঠা হয়তো কেউ ঠেকাতে পারবে না শেষ পর্যন্ত। তবুও শেষ পর্যন্ত দেখা যাক, কি হয়!

সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন নিয়েই ইংল্যান্ড গেছে বাংলাদেশ দল। টাইগারদের হিসেবও ছিল, কাকে কাকে হারাবে, কার বিরুদ্ধে ভালো খেলার চেষ্টা করবে। সে হিসেবে শুরুতেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে দিয়ে লক্ষ্যের পথে ভালোই এগুতে শুরু করে তারা।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সামান্য হিসেবের ভুলে শেষ মুহূর্তে এসে জয় হাতছাড়া হয়ে যায়; কিন্তু যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় ধরে নিয়েছিল, সেই ম্যাচটি ভেসে গেলো বৃষ্টিতে। তাতেই মূলতঃ বাংলাদেশ কিছুটা ব্যাকফুটে। তবুও ৩ ম্যাচ হাতে আছে। প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং ভারত।

এর মধ্যে অন্তত ২টিতে জিততে হবে বাংলাদেশকে। তাহলে পয়েন্ট হয়ে যাবে ৯। যদি ৯ পয়েন্টই হয় টাইগারদের এবং রান রেট ভালো থাকে, তাহলে শেষ পর্যন্ত সেমিফাইনাল ভাগ্যের সিকে ছিঁড়তেও পারে বাংলাদেশের। আর যদি তিনটিতেই জিততে পারে টাইগাররা তাহলে সেমিফাইনালে খেলাটা অনেকটা নিশ্চিত। এখন দেখা যাক, কী বলে সামনের ম্যাচগুলো।


© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com