বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৩৩ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ১ বছর; শুরু হচ্ছে সম্প্রচার ও সেবা

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ১ বছর; শুরু হচ্ছে সম্প্রচার ও সেবা

কক্ষপথে যাওয়ার এক বছর পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দেশের সবগুলো টিভি চ্যানেলের আনুষ্ঠানিক সম্প্রচার শুরু হচ্ছে চলতি মাসেই। ব্যাংকের এটিএম বুথের নেটাওয়ার্কসহ এই স্যাটেলাইট সেবা দেবে টেলিভিশনের ডিরেক্ট টু হোম সার্ভিসেও। বর্হিবিশ্বসহ স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি বিপণনে জোর দিতে হবে অভ্যন্তরীণ বাজারেও বলছেন টেলিকমিউনিকেশন বিশেষজ্ঞরা।

গত বছর ১২ই মে বাংলাদেশের প্রথম যোগাযোগ উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হয় যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে। মার্কিন কোম্পানি স্পেসএক্স-এর সর্বাধুনিক রকেট ফ্যালকন-৯ স্যাটেলাইটটি নিয়ে কক্ষপথের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে এবং স্যাটেলাইটটি সফলভাবে উৎক্ষেপণের পর গ্রাউন্ডে সিগন্যালও পাঠায়। এক বছর আগে এভাবেই পৃথিবীর কক্ষপথে ডানা মেলে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। মহাকাশ জয়ের শুভ সূচনা হয় বাংলাদেশের।

গত এক বছর বিভিন্ন পরীক্ষানিরীক্ষা ও কার্যক্রম শেষে আগামী ১৯শে মে থেকেই পুরোপুরি বাণিজ্যিক সেবা দেবে এই স্যাটেলাইট। এর মধ্যে দেশের সব টিভি চ্যানেলের আনুষ্ঠানিক সম্প্রচারসহ থাকছে ডিরেক্ট টু হোম সার্ভিসও।

বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ জানান, ‘উনিশ তারিখ থেকে সমস্ত টেলিভিশন চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করবে। যারা ডিটিএইচ সার্ভিস নিবে তারা প্রায় ১০০ থেকে ১৫০ চ্যানেল পাবে।’

স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক সফলতার জন্য জোর দিতে হবে বিপণনে। লার্ন এশিয়ার সিনিয়র পলিসি ফেলো আবু সাঈদ খানের মতে, ‘বিপণনের উপর সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া উচিত। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের আয়ুস্কাল ১৫ বছর।

এটি উৎক্ষেপনের জন্য ১৫০ মিলিয়ন ইউরোর অধিক টাকা এইচএসবিসি ব্যাংকের কাছ থেকে বাংলাদেশ সরকার বানিজ্যিক ঋণ নিয়েছে। সেই ঋণ পরিশোধের সময় সীমা কিন্তু ১২ বছর। এ রিনটা নেয়া হয়েছে ২০১৬ সালে। ইতিমধ্যে তিন বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। আমাদের হাতে কিন্তু সময় খুব কম।’

বিভিন্ন ব্যাংকের এটিএম বুথের নেটওয়ার্ক সেবাও দেবে এই স্যাটেলাইট। ফিলিপাইনেও ৪টি ট্রান্সপন্ডার ভাড়ার বিষয়ে আলোচনা চলছে। বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘ব্যাংকের এটিএম মেশিন, সেগুলোকে আমরা স্যাটেলাইটের মাধ্যমে কানেকশান দেব।

অর্থৎ এটিএম থেকে সরাসরি স্যাটেলাইটে যাবে। আর স্যাটেলাইট থেকে সরাসরি হেড অফিসে যাবে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে যাবে না। সাইবার থ্রেট অনেক কমে যাবে।’

বহির্বিশ্বের তুলনায় অভ্যন্তরীণ বাজারেই স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক সম্ভাবনা বেশি বলেই মনে করেন লার্ন এশিয়ার সিনিয়র পলিসি ফেলো। তিনি বলেন, ‘দেশের বাইরে প্রতিযোগিতা অত্যন্ত তীব্র। সেখানে লাভের অঙ্কটা কম হবার সম্ভবনা বেশি। কিন্তু দেশের ভেতরে কোন প্রতিযোগিতা নেই। অতএব এখানে লাভের অঙ্ক বেশিও হতে পারে।’

এই স্যাটেলাইটে থাকা ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ৩৮টি দিয়ে চলবে বাণিজ্যিক কার্যক্রম।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com