বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন

নানা অভিযোগ: বিএনপিকে নিয়ে অস্বস্তিতে ঐক্যফ্রন্ট

নানা অভিযোগ: বিএনপিকে নিয়ে অস্বস্তিতে ঐক্যফ্রন্ট

বিএনপির কর্মকাণ্ডে অস্বস্তিতে রয়েছে ঐক্যফ্রন্টের অন্য শরিকরা। তারা বলছেন, কেউ ফ্রন্ট ছেড়ে গেলে আপত্তি নেই। বিএনপি চলে গেলেও, ঐক্যফ্রন্ট অটুট থাকবে। বরং চেষ্টা থাকবে জোটের কলেবর বাড়ানোর।

ঐক্যফ্রন্টের সিদ্ধান্ত অমান্য করে শপথ নেয়ায় দুই সংসদ সদস্যের একজনকে বহিষ্কার অন্যজনকে শোকজ করে গণফোরাম। শরিকদের সঙ্গে কোন আলোচনা ছাড়াই বিএনপির ৬ জনের ৫জন শপথ নেয়ায় সন্দেহ দানা বাঁধে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে। সেটি আরো ঘণীভূত হয়েছে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যে।

গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘একসঙ্গে সিদ্ধান্ত নিয়ে যদি আমরা শপথ নিতে যেতে পারতাম,তাহলে ৭ জনই একটা ভালো ভূমিকা নিতে পারতো। তাহলে আর সুলতান মুনসরকেও আমাদের বহিষ্কার করতে হত না আর মোকাব্বির খানকেও শোকজ করতে হত না। কিন্তু বিএনপির ছয়জন চলে যাওয়াতে আমাদের রাজনীতিতে একটা উলট পালট অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যের সমালোচনা করে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘একজনের ব্যাপারে একরকম আরেক জনের ব্যাপারে আরেক রকম সিদ্ধান্ত এগুলো সবকিছুই জনগণ দেখেছে। যখন মানুষ সবকিছু বুঝতে পারলো তখন আপনিই বললেন চার মাস আগের নেয়া সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। এখন তো দলের মধ্যেই কথা হচ্ছে ঐক্যজোট করাই ভুল হয়েছে। ভুল যখন হয়েছে তখন চলে গেলেই তো হয়, যাচ্ছেন না কেন।’

এদিকে, ঐক্যফ্রন্টকে গুরুত্ব দেয়ার অভিযোগ এনে ২০ দল ছেড়েছে আন্দালিব রহমান পার্থের নেতৃত্বাধীন বিজেপি। আল্টিমেটাম দিয়েছে আরো কয়েকটি শরিকদল। ঐক্যফ্রন্ট শরীকরাও এর সুরাহা চান।

এ বিষয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ঐক্যফ্রন্ট হওয়ার পরে বিএনপি ঐক্যফ্রন্টকে যে সময় দিয়েছে সেই তুলনায় ২০ দলের শরিকদের অবহেলা করেছে বলে তারা অভিযোগ করেছে। এমনটা যদি সত্য হয়ে থাকে তাহলে আমি পার্থের বক্তব্যের সঙ্গে একমত। এটা বিএনপিরও বুঝা উচিত ছিল।’

জেএসডি (রব) সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন বলেন, ‘লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের একসঙ্গে থাকা উচিত। এরপরও যদি কেউ চলে যেতে চান তাহলে আমাদের কিছু বলার নাই।’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আযম খান মনে করেন, এখন আর ঐক্যফ্রন্ট বা ২০ দল কোনটিরই দরকার নেই। তিনি বলেন, আমরা দুই জোটকেই ধন্যবাদ জানাতে চাই এবং বলতে চাই গুড বাই। আমার মতে এখন বাস্তবতা হল সকল জোট ভেঙ্গে যে যার মত করে দল গোছানো।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব ১৩ই অক্টোবর বিএনপিসহ চারটি দল নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হয়।


© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com