সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে রাজউকের দরপত্র আহবান

বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে রাজউকের দরপত্র আহবান

রাজধানীর হাতিরঝিলের বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে দরপত্র আহবান করেছে রাজউক। ২৪শে এপ্রিলের মধ্যে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানকে দরপত্র জমা দিতে বলা হয়েছে।

তবে ঐ সময়ের মধ্যে উপযুক্ত কাউকে না পেলে, রাজউক নিজেই বিদেশি সহায়তায় ভবন ভাঙবে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। যদিও এ দরপত্র আদালতের নির্দেশের লঙ্ঘন বলে জানিয়েছেন আইনজীবী মনজিল মোরশেদ।

ভাঙ্গার জন্য খালি করে মঙ্গলবার সিলগালা করে দেয়া হয়েছে বিজিএমইএ ভবন। তারপরও সকাল থেকেই ভিড়। উদ্দেশ্য পুলিশকে বুঝিয়ে শুনিয়ে তালা খুলে ভেতরে আটকে পড়া জিনিসপত্র নিয়ে আসা।

কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। ভবনের সামনে উপস্থিত ব্যবসায়ীরা জানায়, বিজিএমইএ আমাদের আশ্বাস দিয়েছিল আপনারা থাকেন আরও আট থেকে নয় মাস সময় পাওয়া যাবে। গতকালও বলেছে যে এক সপ্তাহ সময় দিবে। কিন্তু এখানে এসে তেমন কিছু দেখছি না।

একই ভুল করেছেন বিজিএমইএ কর্মকর্তারাও। ভবনে রয়ে গেছে সংগঠনটির ভারী যন্ত্রপাতি। বিজিএমইএ যুগ্ম সচিব প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান বলেন, ভবনের ভিতরে এখনও আমাদের জেনারেটর,লিফট, সাব স্টেশনের মত বড় বড় কিছু যন্ত্রপাতি রয়েছে। আমরা আবেদন করে খুব শীঘ্রই ভবনে ঢুকে আমাদের বাকী মালামাল বের করে আনবো বলে আশা করছি।

তবে হাতিরঝিলের এই ভবন অক্ষত থাকবে অন্তত ২৪শে এপ্রিল পর্যন্ত। ভবন ভাঙতে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ওইদিন পর্যন্ত সময় দিয়ে দরপত্র আহ্বান করেছে রাজউক।

গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, যদি উপযুক্ত সংস্থা না পাওয়া যায়, সেক্ষেত্রে আধুনিক নির্মাণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা রাজউকের পক্ষ থেকে ভবনটি উচ্ছেদের জন্য যে প্রক্রিয়া দরকার সেটি প্রয়োগ করবো।

ভবন ভাঙার পাশাপাশি ব্যবহারযোগ্য মালামাল কিনতে সর্বোচ্চ দর ঘোষণা করা প্রতিষ্ঠানই এ কাজ পাবে। আর এ দরের ১০ শতাংশ অর্থ জামানত দিতে হবে। অথচ, আদালতের নির্দেশনা রয়েছে- ভবন ভাঙ্গার ব্যয় বহন করবে বিজিএমইএ।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, রাজউকের উপর নির্দেশ ছিল ভাঙার। যতক্ষণ পর্যন্ত না আদালতের নির্দেশ পরিবর্তন না হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত সে নির্দেশ অমান্য করার এখতিয়ার নেই। যদি রাজউক এমন কিছু করে থাকে তাহলে তা আদালতের নির্দেশের পরিপন্থি হবে।

সেই সঙ্গে ভবন ভাঙতে বিজিএমইএর এক বছর সময় চেয়ে করা আবেদন প্রত্যাহার করতে তিন দিনের মধ্যে সময় দিয়ে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন তিনি।

এদিকে বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে হাতিরঝিলের ভবন নিয়ে আদালতে সময় বাড়ানোর কোনো আবেদন করা হয়নি বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান।

উত্তরায় নতুন ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় ভবন ভাঙার খরচ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ভবন ভাঙতে কত খরচ হবে, সে ব্যাপারে বিজিএমইএ’র কোনো ধারণা নেই।


© All rights reserved © 2017 AjKaal24.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com